Tue, January 31, 2023
রেজি নং- আবেদিত

বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের যত আজব ঘটনা

বারমুডা ট্রায়াঙ্গলে আজ পর্যন্ত যা যা অঘটন ঘটেছে এবং সচরাচর যা যা হয়, তা থেকে বাছাই করে কিছু আজব ঘটনা তুলে ধরা হল।

১. ১৯৪৫ সালে আমেরিকার ৬টি বোমারু বিমান নিখোঁজ হয়ে যায় এই বারমুডা ট্রায়াঙ্গলে। আর সেই সাথে নিখোঁজ হয় তাদের উদ্ধার করতে যাওয়া বিমানগুলোও। ২৭ জন পাইলট একসাথে গায়েব হয়ে যাবার আগে একজন পাইলট রিপোর্ট করেছিলেন সব কিছু খুব অদ্ভুত লাগছে এমনকি সাগরটাও।
২. ১৪৯২ সালে কলম্বাসের জাহাজটি ভেসেছিল বারমুডার থমথমে সাগরে। সেসময় তার জার্নালে তিনি লিখেছিলেন কম্পাসের কাটার অদ্ভুত নাড়াচাড়া আর আকাশে একটি আগুনের গোলাও দেখতে পেয়েছিলেন।
৩. গত শতকে কম করে হলেও ১০০০ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে এই বারমুডায়। প্রতি বছর গড়ে ৪টি বিমান, ২০টি ইয়ট হারিয়ে যায় এই ট্রায়াঙ্গলে।
৪. ব্রুস গার্নন নামের একজন পাইলট দাবী করেন যে তিনি বারমুডার উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় ২৮ মিনিট হারিয়ে ফেলেছিলেন একটি টাইম-টানেলের ভেতরে পড়ে। উল্লেখ্য রাডার থেকে সেই বিমান একেবারেই হারিয়ে গিয়েছিল আর মায়ামি বীচের কাছে আসার পর আবার বিমানটি রাডারে দেখা যায়।
৫. ১৯৭৮ সালে আরভিন রিভার নামের একজন বৈমানিকের বিমান ভূমি থেকে ২ কিমি দূরে দেখতে পাওয়া যায়। তার ঠিক ১ মিনিট পরেই এয়ারপোর্টের ফ্লাইট কন্ট্রোলারদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে বিমানটি একেবারে হাওয়ায় মিলিয়ে যায়। এরপর আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।
৬. বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের সমুদ্রের তলদেশে প্রচুর পরিমাণে মিথেন গ্যাস আটকে আছে। আর এই মিথেনের কারণে সৃষ্ট গ্যাস পকেটে পানির ঘনত্ব বেড়ে যায় আর জাহাজকে ডুবিয়ে দেয় – এমনটাই ধারনা বিজ্ঞানীদের।
৭. বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের মত এরকম আরও একটি জায়গা আছে যার নাম ড্রাগন ট্র্যায়াঙ্গেল যা প্রশান্ত মহাসাগরে আছে। ১৯৫০ সালে এই জায়গাকে বিপজ্জনক হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয় যখন ২ বছরে প্রায় ৭০০ নাবিক নিয়ে দুটি জাহাজ হারিয়ে যায়।
৮. অনেকেই বলেন যে, আটলান্টিসের হারানো শহরটি নাকি বারমুডা ট্রায়াঙ্গলের নীচেই পাওয়া যাবে। ওই শহরের ক্রিস্টাল পাওয়ারের কারণে নাকি এসব দুর্ঘটনা হয়। উল্লেখ্য আটলান্টিসে শহরের সকল এনার্জি আসত কোন এক ক্রিস্টালের মত বস্তু থেকে। আটলান্টিসের কোন সত্যতা যদিও এখনো পাওয়া যায়নি। এগুলো সবই ধারনা।
৯. আমেরিকান নেভীর যুদ্ধ জাহাজ ১৯১৮ সালে ৩০৬ জন নাবিক নিয়ে গায়েব হয়ে গিয়েছিল এই বারমুডায়। এ পর্যন্ত এটাই একক ভাবে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা।
এছাড়া অনেক গবেষণা প্রতিষ্ঠান এই জায়গায় ভিন গ্রহের যান দেখতে পান বলে রিপোর্ট করেছিল বহুবার। তার মধ্যে অন্যতম হলো আমেরিকার সরকারী প্রতিষ্ঠান ।
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

এই সম্পর্কীত আরো সংবাদ পড়ুন

সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী দেশের গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করেছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী দেশের গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করেছে এবং অবৈধভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের

বিস্তারিত »

চতুর্থবারের মত অস্ট্রেলিয়ার বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন স্টিভেন স্মিথ। রিকি পন্টিং ও মাইকেল ক্লার্কের পর

বিস্তারিত »

রাবির কেন্দ্রীয় গবেষণাগারের ৩২টি যন্ত্রপাতির ২৪টিই অকেজো

কোটি টাকা মূল্যের গবেষণার কাজে ব্যবহৃত প্রযুক্তি দিয়ে সাজানো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গবেষণাগার। তবে সাজানো-গোছানো

বিস্তারিত »

অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়াচ্ছে রোহিঙ্গারা: র‌্যাবের ডিজি

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন বলেছেন, রোহিঙ্গারা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়াচ্ছে। তিনি বলেন,

বিস্তারিত »