Sat, January 28, 2023
রেজি নং- আবেদিত

২০১৬ সালেই ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ট্যাব দেওয়া হবে :শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় আগামী ২০১৬ সাল থেকে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের একটি করে ট্যাব দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে এ উদ্যোগ অনেক বেশি কার্যকরী হবে।

শিক্ষামন্ত্রী আজ মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের করবী হলে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম প্রতিষ্ঠার তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ ঘোষণা দেন। অনুষ্ঠানে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বিশেষ অতিথি ছিলেন।

অতিরিক্ত সচিব ও এটুআই প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কবীর বিন আনোয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শিক্ষাসচিব মো. নজরুল ইসলাম খান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মেছবাহ উল আলম প্রমুখ বক্তব্য দেন। 

শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও এর অধিদপ্তর-দপ্তর, শিক্ষা বোর্ডসহ সব প্রতিষ্ঠানের বেশির ভাগ কাজকর্ম এখন অনলাইনে সম্পন্ন হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় বাস্তবায়নে শিক্ষা মন্ত্রণালয় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, বর্তমানে দেশের ২০ হাজার ৫০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিটমিডিয়া ক্লাস রুম পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। বহু শিক্ষক এখন ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি করতে পারেন। কেন্দ্রীয়ভাবে খোলা হয়েছে শিক্ষক বাতায়ন ব্লগ।

মন্ত্রী আরো বলেন, “আমরা বছরের শুরুর দিনে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সব শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ করি। এসব বইয়ের ই-ভার্সন ই-বুক হিসেবে অনলাইনে দেওয়া আছে। এখন সময় এসেছে ‘এক শিক্ষার্থী এক ট্যাব নীতি’ বাস্তবায়নের।”

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আশা করছি আগামী বছরই ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে একটি করে ট্যাব তুলে দিতে পারব। তাতে পাঠ্যবইয়ের ই-ভার্সন দেওয়া থাকবে। শিক্ষার্থীদের সাথে পড়ালেখা সম্পর্কিত সব যোগাযোগ আরো সহজ, গতিশীল ও বাস্তবানুগ হবে। পরবর্তী বছর আবার ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ট্যাব দেওয়া হবে। এভাবেই পর্যায়ক্রমে সব শিক্ষার্থীর হাতে ট্যাব পৌঁছে যাবে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email

এই সম্পর্কীত আরো সংবাদ পড়ুন

মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববীতে প্রশাসনিক উচ্চপদে নারীদের নিয়োগের সিদ্ধান্ত

সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কার মসজিদুল হারাম ও মদীনার মসজিদে নববীতে প্রশাসনিক উচ্চপদে নারীদের নিয়োগের

বিস্তারিত »